«

»

Nazrul

কমে যাচ্ছে শিশুদের সৃজনশীলতা

এডিসন তখন পাঁচ বছরের শিশু। মুরগিকে ডিমে তা দিতে দেখে বুঝলেন, শরীরের উত্তাপ থেকেই ডিম ফুটে বাচ্চা বের হয়। কাজটা মুরগিরই, কিন্তু চাইলে তিনি কেন পারবেন না? ব্যস, তাঁরও ইচ্ছা হলো ডিম ফুটিয়ে ছানা জন্ম দেওয়ার। এরপর নাওয়া-খাওয়া ভুলে টানা দুই দিন গোলাঘরে ডিমে তা দিতে বসলেন তিনি। নিজের জামাকাপড়ে জড়িয়ে ডিমের ওপর বসে তা দেওয়ার সেই ঘটনায় বাড়ির বয়োজ্যেষ্ঠরা রাগ করেছিলেন বটে, কিন্তু সেই উদ্ভাবনী ভাবনাই উত্তরকালে তাঁকে বানিয়েছিল বিশিষ্ট বিজ্ঞানী টমাস আলভা এডিসন, এনে দিয়েছিল জগৎজোড়া খ্যাতি। সেই সৃজনশীল ভাবনার জোরেই আমরা পেয়েছি বৈদ্যুতিক বাতি_যার সূক্ষ্ম ফিলামেন্টটি তিনি জোগাড় করেছিলেন এক ধরনের জাপানি পাখা থেকে। উদাহরণটা শৈশবের উদ্ভাবনী ক্ষমতা বোঝানোর জন্য, যার আকাল তৈরি হচ্ছে সাম্প্রতিককালে। অতি সম্প্রতি বৈজ্ঞানিক গবেষণা প্রমাণ করেছে, একালের শিশুরা পাঠ্য বই মুখস্থ করার কাজে যতটা পারদর্শী, উদ্ভাবনী শক্তির পরিচয় দিতে প্রায় ততটাই ব্যর্থ হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের উইলিয়াম অ্যান্ড মেরি
কলেজের একদল গবেষক ১৯৭০ থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত তিন লাখ যুবক ও শিশুর সৃজনশীল ক্ষমতা পরীক্ষা করে জানিয়েছেন এই তথ্য। বয়সের ভারে ন্যুব্জ বৃদ্ধদের সৃজনশীলতা কমে যাবে এটাই স্বাভাবিক, কিন্তু যদি তরুণ বা শিশুদের স্বাভাবিক সৃজনশীলতা বা উদ্ভাবনী ক্ষমতা হ্রাস পায় তা আশঙ্কার কারণই বটে। গবেষকদলের প্রধান কিয়াং হি কিম জানিয়েছেন, তাঁর গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে একালের শিশুরা তো বটেই তরুণরাও অতীতের তরুণদের তুলনায় অনেক কম সৃজনশীল চিন্তা করে, এমনকি তাদের কল্পনাশক্তিও তীব্র নয়। এই গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, বর্তমান যুগের ছেলেমেয়েদের মধ্যে যন্ত্র নির্ভরতা অনেক বেশি এবং এ কারণেই মাথা খাটিয়ে কিছু তৈরি করার ব্যাপারে তাদের আগ্রহ বড় কম। কিম জানান, নব্বইয়ের দশক থেকে ছেলেমেয়েদের মধ্যে আনকোরা এবং অনন্য কোনো বিষয় উদ্ভাবনের প্রবণতা ভীষণভাবে কমে গেছে। তাদের মধ্যে রসবোধও ভীষণ কম। তাদের কল্পনাশক্তি দুর্বল, এমনকি কোনো আইডিয়া বা ধারণাকে বিস্তৃত করার ক্ষমতাও বেশির ভাগ শিশুর নেই। এই গবেষণায় যে পদ্ধতি ব্যবহার করে শিশুদের সৃজনশীল ক্ষমতা মাপা হয় একে বলা হয় ‘টরেন্স টেস্ট’। এই পদ্ধতির একটি পরীক্ষায় শিশুদের দুটি বৃত্ত দেখিয়ে এর বাইরের কোনো আকৃতি আঁকতে বলা হতো, দেখা গেছে বেশির ভাগ শিশুই কাজটি সঠিকভাবে করতে পারেনি। কিন্তু মজার বিষয় হচ্ছে, যেসব শিশু এই টেস্টে অংশ নিয়েছে তাদের স্কুল পর্যায়ে স্যাট (ঝঅঞ) নম্বরের গড় বেশ ভালো এবং প্রতিবছরই তাতে অনেকের উন্নতিও হচ্ছে। কিম এর পরিপ্রেক্ষিতে জানিয়েছেন, শুধু পড়াশোনার ভালো ফল কারো প্রকৃত প্রতিভা বা উদ্ভাবনী ক্ষমতার পরিচয় দেয় না। লেখাপড়ায় ভালো হলেই কেউ সৃজনশীল ক্ষমতার অধিকারী হয়ে যাবে এমনটা ভাবা তাই মোটেও ঠিক নয়। তবে শিশুদের মেধা যাচাইয়ের জন্য বিদ্যমান শিক্ষাব্যবস্থাই দায়ী, কারণ শিক্ষাদান পদ্ধতিতে বার্ষিক ফলাফলের ওপরই কেবল গুরুত্ব দেওয়া হয়। এর ফলে পাঠ মুখস্থ করা বা নির্দিষ্ট বিষয়ভিত্তিক পড়াশোনা করাই সেখানে বিশেষ গুরুত্ব পায়, শিশুদের সৃজনশীল ক্ষমতা যাচাইয়ের বিশেষ কোনো ব্যবস্থাই পাঠক্রমে নেই। তাঁর মতে, শিশুদের সৃজনশীলতা নষ্টে টেলিভিশনও বিশেষ ভূমিকা রাখছে। একালের শিশুরা মাত্রাতিরিক্তভাবে টেলিভিশন দেখে বা কম্পিউটারে গেমস খেলে সময় অপচয় করে। টেলিভিশন শুধু শ্রবণ ও দর্শনমাধ্যম হওয়ায় এতে দ্বিপক্ষীয় যোগাযোগের সুযোগ তেমন নেই। ফলে সেখানে শিশুরা অনেক কিছু দেখে বটে, কিন্তু সরাসরি অংশ নেওয়ার বা প্রশ্ন করার সুযোগ না পাওয়ায় টিভি থেকে আসলে তেমন কিছুই শেখে না।
যন্ত্র, প্রযুক্তি ও পাঠ্য বই নির্ভরতা এভাবেই বর্তমান সময়ের শিশুদের উদ্ভাবনী ক্ষমতা কমিয়ে দিচ্ছে। কিমের আশঙ্কা, সৃজনশীলতার অভাব একটা সময়ে এসব শিশুকে সামনে এগিয়ে যাওয়ার পথে যথেষ্ট ভোগাবে। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইন।


এ সম্পর্কিত আরো কিছু টুইট:

গতকালের BAN vs IND ঐতিহাসিক খেলাটির এক্সক্লুসিভ হাইলাইটস ও সাকিবের বাংলায় আমন্ত্রন
কোন ইনভেস্ট ছাড়াই দিনে ১ থেকে ১০ ডলার আয় করুন।[না দেখলে ১০০০% মিস]
এইচ এস সি পরীক্ষার রেজাল্ট ২০১৫ সকল বোর্ডের ফলাফল দেখুন এখান থেকে।
New Year Gift Grameenphone ৩০০MB ৪৫ টাকায় ও ১GB ১৫০ টাকায়
মাসে ২৪০ ডলার ইনকাম করতে চাইলে আমার সাথে যোগ দিন(ইনস্ট্যান্ট পেমেন্ট প্রুফ দেখুন ভিডিওতে)।
কোনো ইনভেস্ট ছাড়াই ২০-৩০ মিনিটে ঘরে বসে আয় করুন দৈনিক ১$-$5 বা ৮০ - 500 টাকা
Virtual Dollar ক্রয় বিক্রয়ের একটি বিশ্বস্ত নাম আরডিবিসিওয়ালেট।

মন্তব্য দিনঃ

comments

About the author

Nazrul

Nazrul

Md. Nazrul Islam Bsc. DUET (Electrical) (Diploma Gutter BAFA) (Mashinist German TTC) Businessman

Permanent link to this article: http://techtweets.com.bd/uncategorized/nazrul/12605

মন্তব্য করুন