«

»

ttvvrr

আসুন শিখি DropBox এর ব্যাবহার + ক্লাউড কম্পিউটিং সম্পর্কে সংক্ষেপে সম্পূর্ণ ধারনা। না দেখলে চরম মিস!! এখনই install করুন!!

আজকে একটি বিষয় নিয়ে লিখব তা হল ড্রপবক্স, এটি একটি ক্লাউড সার্ভিস। সহয ভাষায় এখানে আপনি আপনার ফাইলগুলো আপলোড করে রাখতে পারবেন এবং খুব সহযে এগুলা আপনার ক্লায়েন্ট, বন্ধু, ফোরাম বা ব্লগে শেয়ার করতে পারবেন। ফ্রিতে ড্রপবক্স 18 গিগাবাইট স্টোরেজ ফ্রি দেয়।

মিডিয়া ফায়ার বা অন্যরকম ফাইলহোস্টিং এ আনলিমিটেড আপলোড থাকার পরও কেন আমি ড্রপবক্স ইউজ করব?
ড্রপবক্স ইউজ করবেন কারন এর সাহায্যে আপনি দ্রুত ফাইল আপ করতে পারবেন দ্রুত শেয়ার করতে পারবেন যা অন্যকোনখানে সম্ভব না। ফাইল করাপ্ট হবে না। আপলোডিং এ ফাইল লিমিটেশন নাই, অটো রিজিউম আপলোড, ডেক্সটপ এপ থাকার জন্য কাজটা আরো সহজ হয়েছে।

মজার ব্যাপার হল ড্রপবক্স এর শেয়ার্ড ফোল্ডারটা আর দশটা ফোল্ডারের মতই যেখানে খুশি রাখা যায় এবং এই ফোল্ডারে যা রাখবেন তা নেট কানেকশন পেলেই অটো আপলোড হয়ে যাবে।

আরেকটি কথা বলে রাখি ড্রপবক্স HTPPS প্রটোকল ইউজ করে তাই এখানকার নিরাপত্তা ভালই বলা যায়।

কিভাবে রেজিস্টার করবেনঃ

রেজিস্টার করতে পারবেন Register Now এখান থেকে।

আমার রেফারেল এ registration করলে 500MB বেশি space পাবেন। তাই না করলে আপনাদেরই লোকসান হবে।

রেজিস্টার করা হলে ড্রপবক্স এর ডেক্সটপ ক্লায়েন্ট নামিয়ে নিন এখান থেকে https://www.dropbox.com/downloading?src=index এবং ইনষ্টল করে লগিন করুন হালকা কনফিগার করতে হবে সেটা খুবই ইজি তাই আর বললাম না।

[নোটঃ ইচ্ছা করলে আমার রেফারেল থেকে জয়েন করতে পারেন তাতে আমি এবং আমার রেফারেল উভয়কেই ড্রপবক্স 500 মেগাবাইট স্পেস গিফট করবে, রেফারেল লিংক http://db.tt/2Vcakq8t ]

শেয়ার করার জন্য কয়েকটি সাধারন সিস্টেম,

নিচের ইমেজটি দেখুন,

http://dl.dropbox.com/u/35758776/Forum%20Share/dropbox.jpg

এটা ড্রপবক্স ফোল্ডারের ছবি, খেয়াল করুন এখানে কয়েক রকমের ফোল্ডার রয়েছে,
এর মধ্যে Public, Photos, others…
এখানে আপনি ইচ্ছামত অন্যান্য নামে ফোল্ডার আপ বা ক্রিয়েট করতে পারবেন,

Public এর ব্যাবহার: এই ফোল্ডারে যেসব ফাইল রাখবেন তার জন্য আলাদা আলাদা লিংক কালেক্ট করতে পারবেন এবং লিংকগুলো শেয়ার করতে পারবেন আপনার ক্লায়েন্ট বা বন্ধুদের জন্য। এটা করতে প্রথমে Public ফোল্ডারে কিছু রাখুন এবং ফাইলটির উপরে রাইট ক্লিক করে Dropbox>Copy Public Link এ ক্লিক করুন। ফাইলটির লিংক কপি হয়ে যাবে এখন শেয়ার করতে পারবেন লিংকটা।

Photos এর ব্যাবহার: এই ফোল্ডারে আপনি ফটো এলবাম বানাতে পারবেন। Photos এর মধ্যে আপনি একটি ফোল্ডার ক্রিয়েট করুন My Album নামে তারপর এর মধ্যে কিছু ইমেজ রাখুন এবং আপলোড হতে কিছু সময় দিন। এরপর My Album ফোল্ডারটির উপর রাইট ক্লিক করে Dropbox>Public Gallery Link এ ক্লিক করুন তারপর লিংকটি ব্রাউজারে দিয়ে প্রবেশ করুন। সুন্দরভাবে গ্যালারিটা দেখতে পাবেন।

সাধারন ফোল্ডারগুলো:
উপরের স্ক্রীনশটে খেয়াল করুন AVision নামে একটি ফোল্ডার আছে, এটি একটি শেয়ার্ড ফোল্ডার, পাবলিক ফোল্ডার না। এই ফোল্ডারটি কিছু ব্যাক্তিদের (অবশ্যই ড্রপবক্স ব্যাবহারকারী) মধ্যে শেয়ার করা আছে। যার ফলে এই ফোল্ডারে যা রাখি তা শেয়ার্ড ব্যাবহারকারীদের কম্পিউটারের ড্রপবক্সে পৌছে যায়। ফোল্ডার শেয়ার করার জন্য ফোল্ডারে রাইট ক্লিক করে Dropbox>Share this folder এ ক্লিক করুন ব্রাউজারে নিয়ে যাবে লগিন করুন তারপর নীচের মত একটি স্ক্রীনশট দেখতে পাবেন

http://dl.dropbox.com/u/35758776/Forum%20Share/dropbox2.jpg

এখানে বক্সে যার (Dropbox User) সাথে শেয়ার করতে চান তার ইমেইল এড্রেসটি লিখুন Share This Folder এ ক্লিক করুন ব্যাস, আপনার বন্ধুটি ডেক্সটপেই একটি নোটিফিকেশন পাবেন এবং মেইল পাবেন। একসেপ্ট করলেই ফোল্ডারটি শেয়ার হয়ে যাবে। একটি ফোল্ডার একাধিক মানুষের সাথে শেয়ার করতে পারবেন।

আরেকটি গুরুত্বপূর্ন ফিচার আছে ড্রপবক্সের, যারা ওয়ার্ডপ্রেস ইউজ করেন তারা জানেন যে Wp-Backup নামে একটা প্লাগিন আছে, এই প্লাগিন আপনার মেইলে সাইটের ব্যাকআপ পাঠায়, চাইলে আপনার ব্যাকআপ ড্রপবক্সে চলে আসবে জাস্ট প্লাগিনে আপনার ড্রপব্ক্সটা অথোনিকেট করে দিতে হবে। এই প্লাগিনটির পাশাপাশি কিছু ফাইল হোস্টিং সাইটও ড্রপবক্স সাপোর্ট করে যেমন Filesonic.com

এবার ক্লাউড কম্পিউটিং সম্পর্কে সংক্ষেপে সম্পূর্ণ ধারনা:
আমরা অনেকেই ক্লাউড কম্পিউটিং, ক্লাউড সার্ভার, ক্লাউড অ্যাপস ইত্যাদি শব্দ ব্যবহার করি কিন্তু এগুলো আসলে কি তা অনেকেই জানি না। মানুষের মুখে মুখে শুনে শুনে নিজেরা বলি। আশা করি আজকের এই পোস্টে সকলে ক্লাউড কম্পিউটিং সম্পর্কে ভাল ধারনা পাবেন।

Cloud-Computing

ক্লাউড কম্পিউটিং হল কম্পিউটারের রিসোর্স গুলো মানে হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার এর সার্ভিস গুলো নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে প্রদান করা। একটু সহজ ভাবে বুঝিয়ে বলি। মনে করেন আপনি একটি প্রতিষ্ঠান ১০০০ জন কর্মীর ডাটা(নাম, ছবি, ঠিকানা, বয়স ইত্যাদি) এবং তাদের বেতনের হিসাব রাখতে চান। তাহলে আপনাকে সাধারন ভাবে কি করতে হবে ? একটি কাস্টমাইজ সফটওয়্যার কিনতে হবে এবং সেই ডাটা গুলো রাখার জন্য হার্ডডিস্ক এ জায়গাও রাখতে হবে। কিন্তু ক্লাউডে এত কিছু করার দরকার নাই শুধু আপনি মাসিক ফি দিয়েই সফটওয়্যার এবং অতিরিক্ত হার্ডওয়্যার না কিনেই অনলাইনে কাজ গুলো করতে পারবেন মুলত এটাই হল ক্লাউড কম্পিউটিং। ভাবতেই অবাক লাগে কোন সফটওয়্যার বা হার্ডওয়্যার এর প্রয়োজন নেই এই ক্লাউড কম্পিউটিং এ !!!

যেকোনো ধরনের ব্যবসায় জন্য ক্লাউড কম্পিউটিং অনেক বেশি উপকারি। কারন ব্যবসায় সংক্রান্ত কনল ধরনের সফটওয়্যার এখন মেঘে (ক্লাউড) এ পাওয়া যায়। যেমনঃ CRM, HR, Accounting & Custom Built Apps ইত্যাদি। কিছু দিনের মধ্যে হয়ত এমন হবে এমন কোন সফটওয়্যার থাকবে না যেটা ক্লাউডে ব্যবহার করা যাবে না।

ক্লাউড কম্পিউটিং মূলত ৪ ধরনের হয়ে থাকে। যেমনঃ

  • Public cloud
  • Hybrid cloud
  • Private cloud
  • Community cloud

নাম গুলো পরেই বুঝতে পারতেছেন কোনটার কাজ কি। তবুও আমি এক কথায় বলে দিচ্ছি।

cloud computing types

  • Public cloud: Public cloud হল এমন এক ধরনের ক্লাউড সার্ভিস যা সাধারন জনগন ব্যবহার করতে পারবে।
  • Private cloud: Private cloud হল যেটা শুধু কোন নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠানের জনগন ব্যবহার করতে পারবে।
  • Hybrid cloud: এটা পাবলিক এবং প্রাইভেট দুইটার সংমিশ্রণে তৈরি।
  • Community cloud: এটা একাধিক প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করতে পারবে।

ক্লাউড কম্পিউটিং বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। যেমনঃ

  • Infrastructure as a service (IaaS)
  • Platform as a service (PaaS)
  • Software as a service (SaaS)
  • Storage as a service (STaaS)
  • Security as a service (SECaaS)
  • Data as a service (DaaS)
  • Test environment as a service (TEaaS)
  • Desktop as a service (DaaS)
  • API as a service (APIaaS)

তবে বেশির ভাগ রেফারেন্স এ SaaS, PaaS, IaaS এই তিনটিকে ক্লাউড কম্পিউটিং এর অন্তর্ভুক্ত করেছে।

Cloud_computing_layers

ক্লাউড কম্পিউটিং এর কিছু সুবিধাঃ

  • কম খরচঃ যেহেতু এতে আলাদা কোন সফটওয়্যার কেনার প্রয়োজন হয় না বা কোন হার্ডওয়্যার এর প্রয়োজন হয় না। তাই স্বাভাবিক ভাবে খরচ কম হবেই।
  • সহজে ব্যবহারঃ ক্লাউড কম্পিউটিং এর কাজ গুলো যেকোনো স্থানে বসেই মোবাইলের মাধ্যমে কন্ট্রোল করা যায় তাই এটা সহজে ব্যবহার যোগ্য।
  • অটো সফটওয়্যার আপডেটঃ ক্লাউড কম্পিউটিং এর সফটওয়্যার গুলো আপনার আপডেট করার প্রয়োজন নেই। এগুলো অটো ভাবে আপডেট হয়ে থাকে। তাই আলাদা ভাবে এটা মেইনটেন্স এর খরচ লাগে না।
  • যতটুকু ব্যবহার ততটুকু খরচঃ ক্লাউড কম্পিউটিং এ আপনি যত টুকু ব্যবহার করবেন শুধু মাত্র ততটুকুর জন্য পয়সা আপনাকে গুনতে হবে। যেটা কিনা ডেস্কটপ কম্পিউটিং এ সম্ভব না।
  • ডকুমেন্ট কন্ট্রোলঃ মনে করুন কোন একটা অফিসে যদি ক্লাউড কম্পিউটিং না ব্যবহার করে তবে সেই অফিসের ডকুমেন্ট সমূহ কন্ট্রোল করতে বা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নেবার জন্য আলাদা লোকের প্রয়োজন হবে কিন্তু ক্লাউড কম্পিউটিং এ সেই ধরনের কোন সমস্যা নেই। অতিরিক্ত লোক ছারাই সকল ডকুমেন্ট কন্ট্রোল করা যায়।
  • সম্পূর্ণ সিকিউরঃ ক্লাউড কম্পিউটিং সম্পূর্ণ সিকিউর কারন এতে আপনার ডাটা হারানোর বা নষ্ট হবার কোন চান্স থাকে না। ল্যাপটপ বা কম্পিউটার হারিয়ে যায়। হার্ডডিস্ক নষ্ট হয়ে যায় ইত্যাদি সমস্যা থেকে ক্লাউড কম্পিউটিং সম্পূর্ণ মুক্ত।

ক্লাউড কম্পিউটিং এর কয়েকটি জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন এবং সার্ভিস সম্পর্কে আলোচনা করা হলঃ

Outright

Outright হল একটি ফাইনান্স অ্যাপ্লিকেশন। এটা ছোট খাট বিজনেসের আকাউন্ট এর কাজে ব্যবহার করা হয়। বিজনেসের প্রফিট, লস, আয়, ব্যয় ইত্যাদির খরচ খুব সহজে করা যায়।

Google Apps

গুগল অ্যাপস অনেক সুবিধা দেয় যেমনঃ ডকুমেন্ট তরি করা, স্প্রেডশিড তৈরি, স্লাইড শো তৈরি, ক্যালেন্ডার মেইনটেন্স, পার্সোনাল ইমেইল ইত্যাদি তৈরি করার সুবিধা দেয়।

Evernote

প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন নোট সমূহ খুব সহজে কন্ট্রোল করা, ব্যবহার করা, যেকোনো স্থানে যেই নোট সমূহ ব্যবহার করাতে Evernote খুবই উপকারি।

Quickbooks

Quickbooks এক ধরনের একাউন্ট সার্ভিস। এর মাধ্যমে ক্যাশ নিয়ন্ত্রন করা, বাজেট তৈরি, বিজনেস রিপোর্ট তৈরি ইত্যাদির কাজে খুব ভাল সাপোর্ট দেয়।

Moo

এর মাধ্যমে খুব সহজে সুন্দর সুন্দর বিজনেস কার্ড, পোস্ট কার্ড, মিনি কার্ড ইত্যাদি তৈরি করা যায়। এমনকি এরা প্রিন্টিং এর সার্ভিসও দিয়ে থাকে।

Toggl

এটি একটি টাইম ট্র্যাকিং অ্যাপলিকেশন। মূলত প্রোজেক্ট কন্ট্রোল এবং টাইমিং এর জন্য এটা ব্যবহার করা হয়। প্রোজেক্ট তৈরিতে কত সময় লাগলো, কোন খাতে কতটুকু সময় সকল হিসাব এর মাধ্যমে জানা যায়।

Box.net

Box.net খুবই চমৎকার একটি সার্ভিস। এটা যেকোনো ধরনের ডিভাইস দিয়ে কন্ট্রোল করা যায়। এতে রাখা যেকোনো ফরমেটের ফাইল যেকোনো স্থানে বসে দেখা যায় বা ব্যবহার করা যায়।

Skype

Skype কম্পিউটার কে ফোনে রূপান্তর করে ফেলেছে। বিশ্বের যেকোনো স্থান থেকে কম্পিউটার এর মাধ্যমে কথা বলা, ভিডিও চ্যাট করা ইত্যাদির সুবিধা দিচ্ছে।

Mozy

অনালাইনে ব্যাকআপ রাখার জন্য খুবই জনপ্রিয় অ্যাপ। টাকার বিনিময়ে আপনি আপনার ফাইলে ব্যাকআপ রাখতে পারবেন এতে।

DropBox

অনেক দরকারি একটি সার্ভিস। ভার্চুয়াল হার্ডডিস্কও বলতে পারেন। মানে আপনি যেকোনো ধরনের ফাইল রাখতে পারবেন এবং সেটা যেকোনো পিসি থেকে কন্ট্রোল করতে পারবেন খুব সহজে। অন্যের সাথে শেয়ার করতে পারবেন।

আসলে ক্লাউড কম্পিউটিং টা অনেক বড় একটা ব্যাপার। প্রায় ৫/৬ দিন বসে বসে অনেক পড়াশুনা করছি এটা নিয়ে। এত বড় এবং ব্যাপক একটা ব্যাপার এটা আমি নিজেও জানতাম না। আমি ৫/৬ দিনে যা পাইছি তার একটি অংশ আপনাদের সামনে তুলে ধরলাম। সময়ের অভাবে এর চেয়ে বেশি তথ্য দেওয়া সম্ভব হয় নি। তবুও সংক্ষেপে এমন ভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি যাতে ক্লাউড কম্পিউটিং বিষয় টা আপনাদের কাছে স্পষ্ট থাকে।

Dropbox এ রেজিস্টার করতে পারবেন Register Now এখান থেকে।

আমার রেফারেল এ registration করলে 500MB বেশি space পাবেন। তাই না করলে আপনাদেরই লোকসান হবে।

The tune source from here and here.


মন্তব্য দিনঃ

comments

About the author

ttvvrr

ttvvrr

Permanent link to this article: http://techtweets.com.bd/tutorials/ttvvrr/38104

2 comments

  1. GM.ornob

    সাজানো গোছানো লেখা , সুন্দর উপস্থাপন , ধন্যবাদ

    1. ttvvrr
      ttvvrr

      আপনাকেও ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন