«

»

বাড়তি আয়ের সুবিধা দিচ্ছে মাইশপ

বাংলাদেশে প্রথম চালু হল মাইশপ সুবিধা বাইমোবাইলের হাত ধরে। ছাত্রছাত্রী ও কর্মজীবি সব ধরনের মানুষদের কাজের পাশাপাশি বাড়তি আয়ের সুযোগ করে দিতেই বাইমোবাইল মাইশপ প্রোগ্রামটি চালু করেছে বাংলাদেশে। যা বাংলাদেশের মানুষদের জন্য কিছুটা হলেও বাড়তি আয়ের উৎস হিসেবে কাজ করছে বলে মনে করেন ব্যবহারকারী শপের মালিকেরা।

ছাত্রছাত্রী

পড়াশোনার পাশাপাশি অনেক ছাত্রছাত্রী আছে যারা বাড়তি অর্থ উপার্জনের চেষ্টা করে থাকেন। কিন্তু আমাদের দেশে যথেষ্ট পরিমাণ সুযোগ সুবিধা না থাকায় পড়াশোনার ক্ষতি করেই অনেক কঠিন কাজ করতে হয়। কিন্তু মাইশপ প্রোগ্রামটি একদমই ঝামেলামুক্ত, ঝুঁকিহীন এবং পড়াশোনার পাশাপাশি এই কাজটি চালিয়ে যেতে পারেন। ছাত্র ছাত্রীরা তাদের অবসর সময়কে কাজে লাগিয়ে মাইশপের মাধ্যমে বাড়তি আয় করতে পারবে।

বাড়তি আয়ের উৎস

আমাদের বর্তমান প্রেক্ষাপটে জীবন যাত্রার মান কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী। এই ঊর্ধ্বমুখী জীবন যাত্রার সাথে তাল মিলিয়ে চলতে গিয়ে আমাদের নিয়মিত আয়ের পাশাপাশি বাড়তি আয়ের প্রয়োজন হয়ে পরছে। অনেকেই চাকুরির পাশাপাশি ব্যবসা শুরু করছে, আবার অনেকে পুঁজি না থাকার কারনে ব্যবসা শুরু করতে পারছে না। তাদের জন্যই সুবর্ন সুযোগ করে দিয়েছে বাইমোবাইল মাইশপ। বিনা পুঁজিতে ব্যবসা করে বাড়তি আয় করার পথ সুগম হল।

ই-কমার্স ব্যবসার ইচ্ছা পুরণ

বাংলাদেশে ই-কমার্স ব্যবসা এখন বেশ জনপ্রিয়। ই-কমার্সকে আরও জনপ্রিয় করে তুলতে বাইমোবাইলের মাইশপ। অনেকেই এখন ই-কমার্স ব্যবসা করতে আগ্রহী। কিন্তু পুঁজি, নিজের ওয়েবসাইট, পণ্য সংগ্রহ, পণ্য ডেলিভারি এবং পণ্য বিক্রি পরবর্তী সময়ে ক্রেতাকে সার্ভিস দেয়ার সুযোগ সুবিধার জন্য অনেকেই ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করতে পারছেন না। এছাড়াও অভিজ্ঞতা না থাকায় অনেকেই ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করতে গিয়ে সফল হচ্ছে না। বাইমোবাইল মাইশপ তাদের জন্য একটি উপযুক্ত স্থান। যেখানে বিনা পুঁজিতে বাই মোবাইলে একটি নিজস্ব স্টোর তৈরী করে ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এছাড়াও এখানে কিছুদিন ব্যবসা করে ই-কমার্স ব্যবসা্র অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারবেন।

মোবাইল শপ

যারা মোবাইলের ব্যবসা করেন তারা একটি নির্দিষ্ট জায়গার মধ্যেই ব্যবসা করেন। কিন্তু সে চাইলে এখন সারা দেশে তার শপ থেকে পণ্য বিক্রয় করতে পারবেন মাইশপের মাধ্যমে। যদি দূর দুরান্তের কোন ক্রেতা ফোন কিনতে চায়, তাহলে মাইশপের মাধ্যমে ফোনটি কিনলে কাস্টমারের ঠিকানায় মাইশপ থেকেই ফোন পৌঁছে দেয়া হবে। এবং সেই ফোনের মুল্যের ভিত্তিতে তিনি পেয়ে যাবেন একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ।

বাইমোবাইল হেড মোঃ ইউসুফ আলী জানান, “দেশে আমরাই প্রথম এই সুবিধা চালু করেছি। যারা ঘরে বসে অর্থ উর্পাজন করতে চান তারা খুব সহজেই এখন আয় করতে পারবেন মাইশপের মাধ্যমে। সারা মাসের অর্থ পরবর্তী মাসের ১০ তারিখের মধ্যে বিকাশ/ব্যাংকের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেয়া হবে।”

তিনি আরও বলেন, “এই কাজটি করা খুবই সহজ। যদি কারও হাতে একটি স্মার্টফোন এবং ইন্টারনেট সংযোগ থাকে তাহলে সে যেকোন জায়গায় থেকে এই কাজটি করতে পারবেন। এছাড়াও বাইমোবাইল প্রতি সপ্তাহে মাইশপ একাউন্টের মালিকদের নিয়ে পর্যায়ক্রমে ট্রেনিং-এর ব্যবস্থা রেখেছে। শুধু আপনার একটু ইচ্ছা বাকিটা আমাদের।”

এখনই মাইশপের একাউন্ট করতে ক্লিক করুন


মন্তব্য দিনঃ

comments

About the author

mimi1

Permanent link to this article: http://techtweets.com.bd/tech-market/mimi1/77169

মন্তব্য করুন