«

»

বিডি টিউটোরিয়াল গিফট

আসুন উইন্ডোজ এক্সপি ভার্সনে সেই বিখ্যাত ওয়ালপেপার ব্যবহারের গল্পটা শুনে নিই।

আসসালামু আলাইকুম, সবাইকে আবারও টেক টুইটস এ-স্বাগতম।সবাই ভাল আছেন তো? আশা করি সবাই মহান আল্লাহ তায়ালার অশেষ রহমতে খুবই ভাল আছেন। ভাল থাকুন ও ভাল রাখুন আপনার পাশের মানুষটিকে। যাইহোক বেশ কয়েকদিন পরেই বোধ হয় টেক টুইটস এ-পোষ্ট করতে বসলাম।মূলত লেখাপড়ার ব্যতিব্যস্ততা ও অন্যন্য কাজের দরুন বেশ কয়েকদিন সময় দিতে পারিনি। এখনও নিশ্চিত নই এই মাসে কয়দিন টেক টুইটস এ- সময় দিতে পারব?

যাইহোক শত ব্যস্ততার মাঝে যদি একটু সময় খুজে পাই তাহলে অন্তত পিসি হেল্প লাইনের সাথে খাকতে পারব বলে আশা রাখি।

আজ ২ রা এপ্রিল সোমবার। গতকাল থেকে এইচ.এস.সি পরীক্ষা শুরু হয়েছে। আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে আলিম ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি (বিএম/ভোক) পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। আগামী ২০ মে তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হবে। ২৩ মে থেকে ব্যবহারিক পরীক্ষা শুরু হয়ে চলবে ৬ জুন পর্যন্ত। উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীরা প্রথমবারের মতো সৃজনশীল প্রশ্ন পদ্ধতিতে আজ বাংলা প্রথমপত্র পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের শিক্ষার্থীরা। সৃজনশীল রচনামূলক প্রশ্নে ৬০ নম্বর এবং বহু নির্বাচনী (অবজেকটিভ) প্রশ্নে ৪০ নম্বর থাকবে। এবার সাত হাজার ৫৫৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নয় লাখ ২৬ হাজার ৮১৪ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেবে। এর মধ্যে ছাত্রসংখ্যা চার লাখ ৯৬ হাজার ৩৯৫ এবং ছাত্রী চার লাখ ৩০ হাজার ৪১৯ জন। গতবারের তুলনায় এবার এক লাখ ৪৭ হাজার ৩৭৩ জন বেশি শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে।

যাইহোক এর মধ্য অনেক শিক্ষার্থী আছেন বা থাকতে পারেন যারা আমাদের পূর্বপরিচিত, নিকটআত্নীয় ও ভাই-বোন ইত্যাদি। তাছাড়া এর মধ্য এমন অনেকে আছেন যারা টেক টুইটস এর ভিজিটর কিংবা ব্লগার তারা অনেকেই হয়ত এই বছরের গুরুত্বপূর্ণ একটি পাবলিক পরীক্ষাতে অংশ নিচ্ছেন। এই জন্য বোধ হয় তাদের অনেকেই  টেক টুইটস এ-সময় দিতে পারবেন না।

সেটা বড় কথা নয়! মূল কথা হল- টেক টুইটস এ-এইচ.এস.সি পরীক্ষার্থী বন্ধুরা এই মাসটা সময় না দিলেও পরবর্তীতে দিতে পারবে। কারন, টেক টুইটস তো আর হারিয়ে যাবেনা এখানে যা কিছু পাবলিশ করা হয় তা পরবর্তীতে সময়েও পাওয়া যাবে/জানা যাবে। কিন্তু এই পরীক্ষার মূহুর্ত/সময় একজন শিক্ষার্থীর বারংবার আসবে না। এই পরীক্ষায় মাধ্যমিক শিক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের পরের পর্বে প্রবেশের যোগ্যতা পরিমাপ করা হয়। এই পরীক্ষার মাধ্যমেই শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ শিক্ষাজীবনের ভিত রচিত হয়। দেশের শিক্ষাব্যবস্থা পরিমাপের এটাই উপযুক্ত ক্ষেত্র, এটাই উচ্চশিক্ষার সৌধ। বলা যায়, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শিক্ষার প্রথম পর্বের সমাপ্তি পরীক্ষা, অন্যদিকে এই পরীক্ষা উচ্চতর শিক্ষার প্রবেশদ্বারও বটে।

ফেসবুক ও মেইলে আমার/আমাদেরকে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এইচ.এস.সি পরীক্ষার্থী বন্ধুরা তাদের জীবনের সফলতার জন্য দোয়া ও অনুপ্রেরনা কামনা করে মেইল/কমেন্টস করেছেন।

পরিশেষে টেক টুইটস এর পক্ষ  থেকে অদ্য যে সকল এইচ.এস.সি পরীক্ষার্থী বন্ধুরা পরীক্ষা দিচ্ছেন তাদের সবাইকে মোবারকবাদ ও সফলতা কামনা করছি। এবং দোয়া রাখছি আপনাদের প্রতিটি পরীক্ষা যেন ভাল হয়, সফলকাম হউন এবং মহান খোদা-তায়ালা যেন আপনাদের সবার কাংখিত উদ্দেশ্যকে যেন পরিপূর্ণ করেন (আমীন)

=========================================================

এইচ.এস.সি পরীক্ষার্থী বন্ধুদের সম্পর্কে বেশ কয়েকটি কখা হল। এবার আজকের পোষ্টের মুল আলোচনাতে ফিরে যাচ্ছি-

 পিসি ব্যবহারকারীর দিক থেকে বর্তমানে এখনও প্রায় ৭৫% ব্যবহারকারি উইন্ডোজ এক্সপি ভার্সন ব্যবহার করছেন। সেই এক্সপির বয়স প্রায় ১১ বছর হতে চললো কিন্তু জনপ্রিয়তা কিন্তু এখনো ভাটা পড়েনি।যেখানে ভিস্তা কোন সফলতার পরিচয় পায়নি।সেখানে এক্সপি ……………এই কথা ভেবেই কিন্তু মাইক্রোসফট উইন্ডোজ এক্সপি ভার্সন এর সেবার মেয়াদ বৃদ্ধি করেছিল। এই মেয়াদ ২০১০ পর্যন্ত করার কথা ছিল কিন্তু অনলাইনে গ্রাহকরা অআপডেট করতে পারবেন ২০১২ এর নভেম্বর পর্যন্ত। বলা যায়, এই বছর পর্যন্ত মাইক্রোসফট অনলাইনে একস্পি ব্যবহার কারিদের সেবা দেবে। পরবর্তীতে হয়ত আর সেবা পাওয়া যাবে না।

যাইহোক আমরা যারা উইন্ডোজ এক্সপি ভার্সন ব্যবহার করি বিশেষ করে সার্ভিস প্যাক-০২।তারা পিসি ওপেন করলেই প্রথমত নিম্নরুপ ওয়ালপেপারে সাথে দেখা পান-

উপরের ছিবিটি কি চিনতে পেরেছেন? একজন সাধারণ কম্পিউটার ব্যবহারকারী হলেও এটি চিনতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। কম্পিউটার চালুর সঙ্গে সঙ্গে এ ছবিটি হয়ত হাজারবার ভেসে এসেছে আপনার ডেস্কটপে। এবার আরেকটু ভিন্ন ভাবে আসা যাক, আচ্ছা, বলতে পারেন পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি দেখা ছবি কোনটি?

হিসাব অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি দেখা এ ছবিটি হচ্ছে উপরের এই উইন্ডোজ এক্সপির ডিফল্ট ওয়ালপেপার, যেটি বিলিয়ন বারেরও বেশি দেখা হয়েছে। ঘাসের উপরে নীল আকাশ, আর আকাশে খন্ড খন্ড সাদামেঘ। মাটি থেকে আকাশের অদ্ভুত এক ‘কম্বিনেশন’! উন্মুক্ত মাঠে নীল রং আর উজ্জল আলোর খেলা দেখা যায় এ ছবিটিতে। উইন্ডোজ এক্সপির এ ওয়ালপেপারটি দেখে অনেকেরই ধারণা, ছবিটি গ্রাফিক্সের মাধ্যমে করা হয়েছে, কিন্তু আসল ব্যাপারটি তেমন নয়। এটি যুক্তরাষ্ট্রের নাপাভ্যালীর একটি পথের ধারে তোলা ছবি যেটি ক্যামেরাবন্দী করেছিলেন বিখ্যাত ফটোগ্রাফার চাক ওরিয়ার (চার্লস ওরিয়ার)। তার তোলা উপরের এই ছবিটি কেবল উইন্ডোজ এক্সপির ওয়ালপেপার হিসাবেই আলোচিত নয়, এর দামের হিসাবেও এটি বেশ আলোচিত। জানা যায়, সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হওয়া ছবির তালিকায় এটি রয়েছে দ্বিতীয় অবস্থানে ওরিয়ার একেবারে জাত ফটোগ্রাফার।

ক্যারিয়ারের দীর্ঘ সময় কাটিয়েছেন ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেলে। প্রতিষ্ঠানটির প্রকাশিত ম্যাগাজিনে তিনি দীর্ঘদিন ফটোগ্রাফি করেছেন। এখানে কাজ করার সময়ই ওরিয়ারের ফটোগ্রাফি সুনাম ছড়ায় সর্বত্র। তাঁর এক্সপি ওয়ালপেপারের ছবিটি ক্যামেরাবন্দী করার কাহিনীটিও বেশ মজার। তখন সদ্য ৬০ পেরিয়েছেন। আর এ বয়সেই আবার নতুন একটি প্রেমে পড়েছেন এ জাত আলোকচিত্রী। রোদ্রোজ্জল এক দিনে নতুন প্রেমিকার সঙ্গে নিজেই গাড়ি হাকিয়ে যাচ্ছিলেন নাপা ভ্যালীর পথ দিয়ে। সঙ্গে ছিল তার অতিপ্রিয় ক্যামেরাটি। চারপাশে তখন ঝলমলে রোদ। রাস্তার দুপাশে আঙ্গুর বাগান। রাস্তার পাশেই উচু টিলা। আর টিলায় সারি সারি আঙ্গুর গাছ। টিলা তখন সবুজ ঘাসে ভরে উঠেছে। টানা রোদে অদ্ভুদ রঙ ছড়ায় এ ঘাসগুলো। আর এ রঙ চোখ এড়ায় না চাক ওরিয়ারের। গাড়ি থামিয়ে নামেন তিনি। একটানা বেশ কয়েকটি ছবি তোলেন। নিচে সবুজ ঘাস, আর আকাশে খন্ড খন্ড মেঘ।

নাপাভ্যালীর এ স্থানটি বেশ আকর্শনীয় হওয়ায় এখানে অনেক ফটোগ্রাফারই আসেন, ছবি তোলেন। তবে আকাশের রঙ আর ঘাসের এ অদ্ভুত মিল এর আগে খুঁজে পাননি কেউই। এই প্রথম চাক ওরিয়ারের ক্যামেরায় আলো আর নীলের মাঝে ঘাস আর মেঘের অদ্ভুত চিত্রটি ধরা পড়লো। ছবিটি দেখে বেশ পুলকিত হলেন ওরিয়ার, তবে তখনও তিনি ধারণা করতে পারেনি তার এই ছবিটিই ইতিহাসের একটি উজ্জল অধ্যায় হতে যাচ্ছে। এ ছবিটিই হতে যাচ্ছে পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি দেখা একটি ছবি। তবে একটি ভালো ছবি তুলে ফটোগ্রাফার যেমন মন্ত্রমুগ্ধের মতো তাকিয়ে থাকেন, এক্ষেত্রে অবশ্য তেমনটি হয়নি। ওরিয়ারেরর ভাষায়, ‘আসলে আমার নতুন প্রেমিকা তখন আমার সঙ্গে, ছবিটি দেখে বুঝলাম যে একেবারে অর্ডিনারি একটা ছবি এসেছে। তবে বেশিক্ষণ সেটি দেখার সুযোগ হয়নি। ক্যামেরা গুটিয়ে তড়িঘরি করে সেসময় গাড়িতে উঠি।’

ছবিটি তুলে এ নিয়ে আর ঘাটাঘাটি করা হয়নি ওরিয়ারের। এভাবেই বেশকিছুদিন পার হয়ে যায়। হয়ত ছবিটির কথা ভুলতেই বসেছিলেন তিনি। তবে না, এটির কথা আবার মনে করিয়ে দিলো তার এজেন্সি। কোথা থেকে যেন ওরিয়ারের ছবিটি দেখেছেন মাইক্রোসফট কর্মকর্তারা। আর এটি তাদের বেশ পছন্দও হয়েছে, যেটি তারা তাদের নতুন অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজ এক্সপির ডিফল্ট ওয়ালপেপার করতে চায়। আর তাই মাইক্রোসফট কর্মকর্তারা এ এজেন্সির মাধ্যমেই চেয়েছেন ছবিটির মূলকপি। চুক্তি করে ছবিটির স্বত্ব কিনে নেয় মাইক্রোসফট। তবে ছবিটির জন্য ঠিক কত অর্থ পরিশোধ করা হয়েছে সেটি গোপন রাখা হয়, চুক্তিতেও স্পষ্ট বলে দেয়া হয় যে, টাকার এ অংকটি কেউই প্রকাশ করতে পারবেন না! তবে ধারণা করা হয়, এটিই হচ্ছে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চদামে বিক্রি হওয়া ছবি।

সম্প্রতি ডেইলিমেইল এক সাক্ষাতকার নিয়েছিল চাক ওরিয়ারের। সেখানে তিনি তার এই বিখ্যাত ছবি সম্পর্কে বলেন, ছবিটি তোলার সময় একটুও ধারণা করতে পারিনি যে এটিই হতে যাচ্ছে একটি ‘আইকোনিক ফটো’। বাস্তবতা হচ্ছে, এটিই সম্ভবত বিশ্বের সবচেয়ে পরিচিত ছবি। এটা যদি বাংলাদেশের কোনো এক গ্রামে নিয়ে গিয়ে দেখানো হয় তবে সেও যেমন চিনতে পারবে, তেমনি চীনের ব্যস্ত রাস্তায় যদি কাউকে ছবিটি দেখিয়ে জিজ্ঞাসা করা এটি কিসের ছবি, সেও এ সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দিতে পারবে।’ (স্টোরি টা পড়ে আমার খুব ভালো লাগলো যে চাক ওরিয়ার বাংলাদেশের কথা বললেন!

বিশ্বের কোটি উইন্ডোজ এক্সপি ব্যবহারকারী তাদের কম্পিউটার চালুর সঙ্গে সঙ্গে চাক ওরিয়ারের তোলা এ ছবিটি দেখতে পান। তবে চাক নিজে তার কম্পিউটার চালুর পর এ ছবিটি দেখার সুযোগ পান না, কারণ তিনি ব্যবহার করেন Apple এর Mac, যেটি Apple এর নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেমে চলে!

(তথ্যসূত্র- একটি ইংরাজী ব্লগ থেকে)

======================================================


এ সম্পর্কিত আরো কিছু টুইট:

আগামী বছরের ১২ জানুয়ারি থেকে ICANN দিবে যে কোন নামের টপ লেভেল ডোমেইন
নতুন ব্যবহারকারীর জন্য কোন লিনাক্স ডিস্ট্রোটা সবচেয়ে ভাল?
বাংলাদেশে চালু হলো অ্যালার্টপে
আপনার এলাকার সর্বশেষ সব সংবাদ, পড়ে দেখুন কাজে লাগবে
কলকাতা বনাম কিংস। IPL FINAL সরাসরি দেখুন ১০কেবি স্পিড এ :) (সাময়িক পোস্ট)
বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে টাইগারদের প্রস্তুতি ম্যাচের লাইভ স্ট্রিমিং লিঙ্ক
বাংলাদেশ বনাম ভারত quarter Final খেলা দেখুন HD কোন বাফারিং ছাড়া্‌, সাথে সময়সূচী ফ্রি

মন্তব্য দিনঃ

comments

About the author

বিডি টিউটোরিয়াল গিফট

বিডি টিউটোরিয়াল গিফট

BD Tutorial Gift -অনলাইন আয়ের ব্লগিং পাঠশালা! বিস্তারিত জানতে লগইন করুন- http://bdtutorialgift.blogspot.com/

Permanent link to this article: http://techtweets.com.bd/selected/achana-pathik/23117

9 comments

Skip to comment form

  1. সাবুজ হামি

    জানতাম না। আজকে জানলাম। ভাল লাগল।

    1. বিডি টিউটোরিয়াল গিফট
      Moriom

      Thanks

  2. rassel uzzaman
    rassel uzzaman

    বিষয় টি জানা ছিল না………….. ! নিজেকে অনেক ইসমার্ট মনে হচ্ছে ।

    1. বিডি টিউটোরিয়াল গিফট
      Moriom

      ভালইতো! নিজে স্মার্ট হবার পাশাপাশি এবার অন্যকেও স্মার্ট বানান। -ধন্যবাদ

  3. Engl

    অঅ…….নেক চমৎকার তথ্য। জেনে ভালো লাগলো। এতদিন আমি মনে করতাম এক্সপি-র ঐ ওয়ালপেপারটা বুঝি কোনো সফটওয়্যারের কেরামতি। ধন্যবাদ গুরুত্বপূর্ণ তথ্যটি শেয়ার করার জন্য।

    1. বিডি টিউটোরিয়াল গিফট
      Moriom

      এবার নিশ্চয় বুঝতে অসুবিধা থাকার কথা নই। So,Thanks for Comment.

মন্তব্য করুন