«

»

অনুপম শুভ্র

ফ্লাইং সসার – অজানা রহস্য

আমাদের পূর্বপুরুষরা নিঃসীম কালিমাভরা ঐ চাঁদোয়ায় যে সাদা অসংখ্য ফুটকি রয়েছে তার দিকে তাকিয়ে ভাবতো- ‘Are we alone?’ এর উত্তর দেয়া হয়তো সম্ভব নয়। তারপরও মানুষ জন্মগত স্বভাববশতঃ খুঁঁজে চলেছে, টেলিস্কোপে চোখ রেখে ভাবতো আর খুঁজতো ঐ মহাবিশ্বের প্রতিটি কোণায়। লক্ষ্য ছিল, মানুষের মতো বুদ্ধিমান প্রাণী খুঁজে বের করা। জ্ঞান-বিজ্ঞানের আদান প্রদান করা। জানতে চাইতো সৃষ্টির রহস্য, ঐ বন্ধুর রহস্য। তারই ফলশ্রুতিতে সে আকৃষ্ট হয়ে পড়ে ফ্লাইং সসারের প্রতি।

ফ্লাইং সসার কি ?
ফ্লাইং সসার (Flying Saucer) দেখতে চাকতির মতো, এক ধরণের রহস্যময় ধাতব আকাশযান। তবে ফাইং সসার বলতে কেউ ভিনগ্রহী আকাশযানকে বোঝান। ফ্লাইং সসারই বলুন আর গুপ্তচর বিমান, অসনাক্ত বিমানই বলুন- তা সবই UFO (Unidentified Flying Object)-এর অন্তর্গত। সেই খ্রীষ্টিয় বর্ষ (A.D) শুরুর আগ থেকেই ফ্লাইং সসার মানুষকে আকৃষ্ট করে চলেছে। মানুষ হতবুদ্ধি হয়েছে, উত্তেজিত হয়েছে, খুঁজে চলেছে সেই আকাশযানের উৎসকে।

খ্রীষ্টপূর্ব ১৫ শতকে মিশরের ফারাও ছিলেন তুতমখুম। তার সময় জনতা আকাশে দেখেছিল বিচিত্র ধরণের আগুনের গোলা। সে সময় সেনাবাহিনী খুঁজেছিল গোলার উৎসকে। হঠাৎ সেই গোলা অদৃশ্য হয়ে যায়। ষোড়শ শতকে কি কোন আকাশযান ছিলো ? না। তাহলে ১৬৮৬ সালের ৯ জুলাই তারিখে জার্মানীর লিপজিক অধিবাসীরা কিভাবে রহস্যময় এক ধাতব বস্তুকে উড়তে দেখেছিলো ? ১৭৫৬ সালে সুইডেনের লোকেরাও দেখেছিলো এ ধরণের অদ্ভূত রহস্যময় বস্তু। ইউরোপ বিশ্বের একটি অতি জনপ্রিয় ইউফো দেখার জায়গা। ১৯৮০ সালে সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে একটি ত্রিকোণাকার বস্তু সন্ধ্যার পর প্রায়ই দেখা দিতে লাগলো। কালো বন্তুটির তিন কোণায় তিনটি লাল আলো, মাঝে সবুজ বৃত্ত। কয়েকদিন পর আকাশযানটি অদৃশ্য হয়ে যায়। সেই সময় ইংল্যান্ডেও ইউফো দেখা দিতে লাগলো। সেই সাথে Crop Circle 3, Crop Circle , অর্থাৎ রাতের বেলা কে বা কারা জমির শস্যেক্ষেতে শস্য মাড়িয়ে বিভিন্ন আকৃতির নকশা তৈরী করে যায়। অনেকে বলেন, ভিনগ্রহের প্রাণীরা এইসব করে দিয়ে যায়। মানুষের পক্ষে এই নকশা তৈরী করা অসম্ভব। কারণ অতি জটিল ও সুক্ষ Crop Circle গুলো তৈরী করতে মানুষের প্রচুর সময় লাগবে, অন্তত এক রাতের মধ্যে নয়। তবে Crop Circle কিছু মানুষ তৈরি করেছে বলে জানা যায়। প্রত্যদর্শীরা Crop Circle তৈরী করার সময় অনেক ইউফো এবং আলোক বিন্দু দেখেছেন। সবচেয়ে লৌহমর্ষক ঘটনা ঘটে, ১৯৯৪ সালে। ঐ বছর কিছু লোক স্টোনহেঞ্জ ভ্রমণ করতে আকাশে ওঠেন। ৪৫ মিনিট পর আবার স্টোনহেঞ্জ দেখতে এসে ১০০ মিটার দৈর্ঘ্যরে একটা জটিল ঈৎড়ঢ় ঈরৎপষব দেখতে পান। এতো জটিল Crop Circle মানুষ ৪৫ মিনিটে তৈরি করতে পারে না। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক্সের প্লেন ক্যামেরাসহ অজানা আলোকে তাড়া করে, তাদের ক্যামেরায় স্পষ্ট দেখা গেলো, অজানা আলো যে ক্ষেতের উপর দিয়ে যাচ্ছে, শস্য কাত হয়ে যাচ্ছে, Crop Circle তৈরি হচ্ছে। অজানা আলো অদৃশ্য হয়ে যায়। এগুলোও ইউফো বটে। মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক বন্ধ হয়ে যায় Crop Circle এর মাধ্যমে। ২০০২ সালে ইংল্যান্ডের এক শস্যবৃত্তে এক এলিয়ানের মুখচ্ছবি এবং তার হাতে ধরে রাখা একটি গোলক দেখা গিয়েছিলো। এছাড়াও হাজারো ধরণের শস্য গোলক প্রতি বছরই আবিষ্কৃত হচ্ছে। গবেষণাগারে ঐ নুয়ে পড়া শস্যগুলো পর্যবেক্ষণের পর জানা গেল -প্রচুর পরিমাণ মাইক্রোওয়েভ মিথস্ক্রিয়ার ফলে ওগুলোর এ অবস্থা হয়েছে।

১৯৮৫ সালে ইরানের পারমাণবিক স্থাপনার উপর দিয়ে উড়ে যায় একটি অদ্ভূত পিরিচ আকৃতির আকাশযান। একে নামানোর জন্য প্রেরিত বেতারবার্তা ফিরে আসে। তারপর একে নামাতে আকাশে উড়ে যায় ভয়ংকর বিমান ‘ফ্যান্টম’। এই বিমান দিয়েই ১৯৬৭ সালে ইসরায়েল অনায়াসে ৬ দিনের যুদ্ধে জয়লাভ করে। এ বিমানের রয়েছে মিসাইল ও পারমানবিক বোমা বহনের ক্ষমতা; কিন্তু বোমা মারার বোতাম টিপে দেখা গেল তা বিকল হয়ে গেছে। ঐ নভোযান চলে যাওয়ার পর ২টি বিমান সচল হয়। ইরান দাবি করে, তার বিদ্যুৎ ব্যবস্থা পর্যবেক্ষণ করতে পশ্চিমারা এই আকাশযান পাঠিয়েছে। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অস্বীকার করে জানায় অন্য বিমানের সুইচ বিকল করার যন্ত্র তাদের কাছে নেই এবং বিমানটিও তাদের না। ১৯৫৭ সালে যখন সোভিয়েত ইউনিয়ন মহাকাশে প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ প্রেরণ করে, তখন আমেরিকাও প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়। স্নায়ুযুদ্ধ তখন শুরু হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রই ১৯৬৯-এ প্রথম চাঁদের বুকে পা রাখতে সক্ষম হয়। অবশ্য তার আগে থেকেই আকাশে ইউফো দেখা যায়। আমেরিকার বিভিন্ন প্রদেশের লোক ইউফো দেখার দাবি জানান। কেউ কেউ আবার ভিনগ্রহীদের হাতে অপহৃত হয়েছেন বলে দাবি করেন। আমেরিকার সেনাবাহিনীর সাথে ইউফোর সংশ্লিষ্টতার কথা অনেকেই তোলেন। এর কারণও অনেক। ১৯৭৮ সালে নিউ অরলিন্স অঙ্গরাজ্যের একটি ফিওয়েতে যাচ্ছিলেন তিনজন মহিলা। তারা হঠাৎ দেখলেন, একটি অদ্ভূত আকাশযান উড়ে যাচ্ছে। তাকে তাড়া করে উড়ে যাচ্ছে মার্কিন বিমানবাহিনীর ১৭টি হেলিকপ্টার। মাথার উপর দিয়ে উড়ে গেলে তাপ অনুভব করলেন তারা। দিগন্তে মিলিয়ে গেল হেলিকপ্টার আর আকাশযান। তখন কিছু বুঝতে না পারলেও রাতে শুরু হলো প্রদাহ। চোখ জ্বলছে, শরীর জ্বলছে। সবারই একই অবস্থা। পরদিন তারা স্থানীয় ডাক্তারের কাছে সবকিছু খুলে বললেন। ডাক্তার স্থানীয় এক পত্রিকাকে ঘটনাটি জানালেন। পত্রিকার কাছে অভিযোগ এসেছে, আবাসিক এলাকার উপর দিয়ে ৬-৭টি হেলিকপ্টার একত্রে উড়ে গেছে। রাস্তার উপর ফাটল চিহ্ন দেখা গেছে। কিছুদিন পর পুলিশ রাস্তায় রোডব্লক বসিয়ে রাস্তা মেরামত করে। অনেকে একে ’কন্সপিরেসি’ বলে আখ্যা দেন এবং বলেন ইউএস এয়ারফোর্স অন্তত একটি ভিন্গ্রহী আকাশযান আটকে রেখেছে। তা অস্বীকার করলো বিমানবাহিনী। কিন্তু ১০ বছর পর একটি টিভি সাক্ষাৎকার পুরো কাহিনী পাল্টে দেয়। ১৯৮৭ সালে নিউ মেক্সিকোর স্থানীয় টিভি চ্যানেলের এম আর টিভি একটি টিভি সাক্ষাৎকার নেয়। এক Undercover (পরিচয় গোপনকারী) ব্যক্তি দাবি করেন- তিনি ‘AREA51’ নামে এক মরুভূমির মাঝে একটি সামরিক বেসে একটি ফ্লাইং সসার নিয়ে গবেষণা করেন। ঐ বেসের প্রধান তাকে বলেন, এটি ভিনগ্রহ থেকে পৃথিবীতে এসেছিলো এবং তাদের আরোহীদের হত্যা করে ইউএস আর্মি এটা দখল করে নিয়েছে। কিন্তু তারা এর কার্যকলাপ বুঝতে ব্যর্থ হন। তাই একজন পদার্থবিজ্ঞানীর সহায়তা চান মেজর। অবশ্য, ঐ লোকের শিক্ষাগত যোগ্যতা ছিল পদার্থবিজ্ঞানে। তারপরও ফ্লাইং সসার সম্বন্ধে তাকে কেন ডাকা হলো কেউ জানে না। যা হোক, ঐ লোক দাবি করেন, ঐ আকাশযান কোন শব্দ ছাড়াই উত্তোলন বা অবতরণ করা সম্ভব। তাহলে এ এক অতি উন্নত সভ্যতার সাক্ষ্য বহন করে। তিনি আরো দাবি করেন যে, সেখানে আরও একটি উন্নত যন্ত্র রয়েছে যার কার্যকলাপ তিনি বুঝতে পারেননি। সেখানে সেই যন্ত্রের ভেতরে একটি গোলাকার কক্ষ, যার মাঝে রয়েছে গোলাকার একটি প্যানেল। আর সেই গোলাকার প্যানেলের উপরে রয়েছে একটি বৃত্ত, যা ছাদ থেকে ঝুলছে। এই বৃত্তাকার যন্ত্রটিই বোধ হয় ফাইং সসারের মাথা। মেস কমান্ডার মেজর হেল দাবি করেন, ঐ এলাকার উপরে আরো ফ্লাইং সসার আসে, তিনি ঐ পদার্থবিজ্ঞানীকে সতর্ক করে দেন-কেউ যেন এ বিষয়ে না জানে। কিন্তু বিজ্ঞানী তার বন্ধুদের জানিয়ে দেন। তখন মেজর তাকে কাজ থেকে বহিষ্কার করেন এবং শাসিয়ে যান। তার কিছুদিন পর তাকে হত্যা করতে গুলি ছোঁড়া হয়। তাই তিনি টিভির শরণাপন্ন হয়েছেন। কিছুদিন পর তিনি স্বপরিচয় স্বীকার করেন এবং জানান ইউফো দেখতে হলে ‘AREA51’ ই উপযুক্ত স্থান। এর অনেক প্রমাণও আছে। ‘AREA51’ -এর ১০ কি.মি. ব্যাসার্ধে থাকে অস্ত্রধারী সৈন্য। কেউ ক্যামেরা নিয়ে ঢুকতে পারে না। গুলি করার নির্দেশ আছে। Discovery Channel এর ক্যামেরায় রাতের বেলা অজানা আলো ‘AREA51’ -এর উপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার দৃশ্য রেকর্ড আছে। তবে কর্তৃপক্ষ ‘AREA51’ কে মানচিত্রে স্থান দেননি এবং তাকে হাইপারসনিক বিমানের গবেষণাগার হিসেবে চিহ্নিত করে। সোভিয়েত স্যাটেলাইট ঐ স্থানে কাঠামোর ছবি তোলে, কোনো ইউফো দেখা যায়নি। ইউফোনামার প্রত্যদর্শীর সংখ্যা নেহায়েত কম নয়। ১৯৬০ সালের সেপ্টেম্বর, মাঝ রাতে আমেরিকার নিউ হ্যাম্পশায়ারে নির্জন পথ ধরে হেঁটে আসছিলো নরম্যান মাসকোরোলা নামের এক যুবক। হঠাৎ সে অবাক হয়ে দেখলো- খোলা মাঠের উপর একটা বিরাট জিনিস, যার ব্যস প্রায় ২৫ মিটার, মাটি থেকে সামান্য উপর দিয়ে এগিয়ে আসছে। গোলাকার বস্তুর পরিধি ঘিরে উজ্জ্বল আলোর মালা, নরম্যান ভয়ে রাস্তার পাশে লুকালো। তারপর দেখলো, সেই অদ্ভূত জিনিসটা আকাশে চক্কর দিয়ে হঠাৎ অদৃশ্য হয়ে গেলো। ১৯৬৪ সালে দু’টি ঘটনা শুধু আমেরিকা নয়, গোটা পৃথিবী জুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করলো। সেই বছরের ২৪ এপ্রিল নিউ মেক্সিকোর সোকরাতে সন্ধ্যাবেলায় এক টহলদার পুলিশ দেখতে পেলেন, রাস্তা থেকে প্রায় দুই হাজার ফুট দুরে নীল আগুনের একটি শিখা। সাহস করে একটু সামনে এগিয়ে গিয়ে পুলিশটি দেখলেন-প্রায় ২০ ফুট চওড়া অর্ধ গোলাকার বস্তু দাঁড়িয়ে আছে চারটি পায়ার উপর ভর করে। একটু কাছে যাওয়া মাত্র সেটা প্রচন্ড গর্জন করে শূণ্যে উড়ে গেলো। তার নিচ থেকে বেরিয়ে আসে নীলচে আগুন। পুলিশ ভদ্রলোক ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখেন নরম মাটির উপর চারটি গভীর গর্ত। সেই রহস্যময়যানের চার পায়ের দাগ। সেই বছরই ওকলাহোমার নিকটবর্তী কোথাও গিয়েছিলেন এক ভদ্রলোক। তিনি সপরিবারে পিকনিক করবেন। পিকনিকে তিনি তার মেয়ের ছবি তোলেন, ছবি পজিটিভ হলে তিনি দেখেন তার মেয়ের ছবির পেছনে মাথা তুলে অদ্ভূত পোষাকের এক লোক দাঁড়িয়ে আছে। তিনি দেখেন, সেই লোকের পোশাক আসলে একজন নভোচারীর পোশাক, সারা শরীরে সাদা রঙের ধাতব পোশাক। চোখের দিকটা কালো কাঁচে ঢাকা। তিনি ঐ দিনের সমস্ত পত্রিকা তন্ন তন্ন করে খুঁজেন। অবশেষে দেখতে পান- ঐ দিন ওকলাহোমার আকাশে ইউফো দেখা গেছে। তবে সর্বাপেক্ষা চাঞ্চল্যকর ইউফো দেখার ঘটনা ঘটে পঞ্চাশ বছরের ব্যবধানে ১৯৪৭ আর ১৯৯৭ সালে। ১৯৪৭ সালের ২৪ জুন। কেনেথ আর্নল্ড নামে এক বৈমানিক ওয়াশিংটনের চেহলিস বিমানবন্দরে তার নিজস্ব বিমান নিয়ে আকাশে ওড়েন। একটি হারিয়ে যাওয়া বিমানের খোঁজে তল্লাশিরত এক অনুসন্ধানকারী দলকে তিনি সাহায্য করতে গিয়েছিলেন। কাসকেট পাহাড়ের সাথে সংঘর্ষে সেই বিমানটি ভেঙ্গে পড়েছিলো। ১২ হাজার ফুট উঁচুতে পাহাড়ে ছিলো সেই ধ্বংসাবশেষ। পাহাড়ের কাছে গিয়ে কেনেথ আর্নল্ড দেখতে পেলেন চাকতির মতো কয়েকটা অদ্ভুত জিনিস উড়ে যাচ্ছে পাহাড়ের চুড়া ঘেঁষে। সাথে সাথে উত্তেজিত কেনেথ কন্ট্রোল টাওয়ারে সংবাদ পাঠালেন। তিনি ৯টি উজ্জ্বল বস্তু দেখতে পেলেন।

কন্ট্রোল টাওয়ারে রেকর্ড হয়ে গেল-‘সাংঘাতিক উজ্জ্বল একটা আলো হঠাৎ ঝলকে উঠে আকাশটাকে আলোয় আলোকিত করে দিলো। সেই আলোয় আমার বিমানের ভেতরটা ঝলমল হয়ে উঠলো। কোনকিছুর বিস্ফোরণে যেমন ঝলক দেয়, ঐ আলোর ছিলো নীলাভ সাদা আভা। প্রথমে ভেবেছিলাম সামনে দিয়ে উড়ে যাওয়া কোন সামরিক বিমানের গায়ে আলোকরশ্মি টিকরে পড়ে ঐরকম হয়েছে। তখন চারপাশ আবার ভালোমত দেখছিলাম। পর মূহুর্তেই দেখলাম-পাহাড়ের চূড়ার কাছাকাছি প্রায় সাড়ে ৯ হাজার ফুট উঁচুতে সারিবদ্ধ হয়ে উড়ে যাচ্ছে ৯/১০টা জিনিস। সেগুলো দেখতে চাকতি ও পিরিচাকৃতির। একটু এলোমেলোভাবে প্রচন্ড গতিতে উড়ছে এই বস্তুগুলো। টানা তিন মিনিট ধরে তাদের দেখলাম। তার আগে এত দ্রুত গতির কোন বস্তু দেখিনি।’

পরে এক টিভি সাাৎকারেও তিনি একথা বলেছিলেন, পুরো পৃথিবীজুড়ে আলোড়নের সৃষ্টি হয়। অন্য দেশ থেকে আসে একই রিপোর্ট। পর্যালোচনা করে দেখা গেলো-একটা পিরিচাকৃতির বস্তু অর্ধপৃথিবীজুড়ে একটা বিশেষ রুটে ঘুরে বেড়িয়েছে। ১৯৯৭ সাল, ৫০ বছর পর ৫ মার্চ আরিজোনার রাজধানী ফিনিক্সে গ্রীষ্মকাল চলছে। মরুভূমির উষ্ণ হাওয়া জনজীবনকে করেছে কিছুটা স্তম্ভিত। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে ফিনিক্সের আকাশে একটা ত্রিকোণাকৃতির, ঠিক ত্রিকোণাকার নয়, বুমেরাং আকৃতির আকাশযান উড়ে যেতে দেখা যায়। তার চার ঘন্টা পর পাহাড়ের উপরে বিশাল একটি মহাকাশযান দেখা গেল। প্রায় ১০০ লোক হোমভিডিও দিয়ে এই মহাকাশযানের ছবি তোলেন। এ নিয়ে আলোচনার ঝড় ওঠে। স্থানীয় পার্লামেন্টের সদস্যরা এতে যোগ দেন, তবে ঐ দিন বিমানবাহিনী দাবি করে তারা আরিজোনার ফিল্ড বেস হতে রুটিন ট্রেইনের অংশ হিসেবে ফেয়ার ফেলেছিলো বিমান হতে। কিন্তু বিজ্ঞানীরা দাবি করেন ফেয়ার চারপাশ আলোকিত করে। তারা যে মহাকাশযানের মত বস্তু দেখেছিলেন তা চারপাশ আলোকিত করেনি। তবে কম্পিউটারে দেখা যায়, ফেয়ার যদি বিমান হতে প্রকৃতপক্ষে ফেলা হয়, তাহলে পাহাড়ের পেছনে অবতরণ করার কথা এবং তত্ত্বানুসারে তা হয়েছেও। তাই আসলে সেটা কী আমাদের জানতে অনেক সময় লাগতে পারে, হয়তো কোনদিনই জানতে পারবো না।

তদন্ত ও গবেষণা ঃ
এ বিষয়ে অনেক গবেষণা হয়েছে। অনেক তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। সোভিয়েত আর্মি, ইউএস আর্মি, ব্রিটিশ আর্মি এবং বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবক কমিটির প থেকে গবেষণা কমিটি গঠিত হয়। এ বিষয়ে তিনটি গ্রহণযোগ্য তত্ত্ব পাওয়া গেছে। সেগুলো হলো:
১. এগুলো (ইউফো) আসলে একটা ষড়যন্ত্র বা কন্সপেরিসি। এগুলো মার্কিন সরকারের তৈরি কিংবা সোভিয়েত সরকারের তৈরি সুপারসনিক কিংবা হাইপারসনিক বিমান। এরকম দ্রুতগতির বিমান আমেরিকা তৈরি করতে সম এবং রাডারকে তা ফাঁকি দিতে পারে। ‘এফ-১১৭ নাইট হক’ এ ধরণের বিমান। এছাড়া নাসাও এ ধরণের বিমান তৈরি করছে।

২. দ্বিতীয় থিওরিটি হচ্ছে এটি বহির্জাগতিক বুদ্ধিমান প্রাণীদের দ্বারা তৈরিকৃত ও পরিচালিত। এটি নিঃশব্দে চলতে পারে। ১৯৭৮ সালে ফ্রায়েরিখ ভ্যালেনটিচ নামে এক লোক মেলবোর্নের উপর দিয়ে উড়ে যাচ্ছিলেন। সমুদ্রের উপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার সময় তার উপর এলো একটি সবুজাভ চুরুটাকৃতির আকাশযান। সেটি তার আকাশযানকে কেন্দ্র করে ঘুরছিলো, কন্ট্রোলারকে এসব জানিয়েই তিনি নিখোঁজ হয়ে গেলেন। ১৯৮৯ সালে চারজন লোক দাবি করলো- তারা একটি বিমানকে একটি চুরুটাকৃতির ‘স্পেশশিপ’ ফলো করে নিয়ে যেতে দেখেছে। তারা আকাশযানটিকে স্পেশশিপ বলে অভিহিত করে, কারণ ওটার গঠন বৈশিষ্ট্য ছিলো অনন্য। বাইরের খোলস সম্ভবত অভ্রের আবরণে আবৃত। একটি সাদা ও সবুজ আলোর বৃত্ত ওটাকে ঘিরে রেখেছে। এটা অতি উন্নত সভ্যতার উদাহরণ। মানুষের চেয়ে কমপক্ষে ১০হাজার বছরের অগ্রগামী যে সভ্যতা। কেননা, ২১৬ খ্রীষ্টপূর্বে রোমেও ফ্লাইং সসার দেখা গিয়েছিলো। তাহলে যিশু খ্রীষ্টের জন্মের বহু আগে তারা (ভিনগ্রহীরা) আকাশবিদ্যা ও মহাকাশবিদ্যা অর্জন করেছিলো! আবার তারা আন্তঃনাত্রিক যোগাযোগ স্থাপনেও সম হয়েছিলো! কারণ আমাদের সৌরজগতে এখনও প্রাণের সন্ধান পাওয়া যায়নি। আমাদের নিকটবর্তী তারকা প্রক্সিমা সেন্টারাই ৪.২২ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত।

৩. তৃতীয় থিউরিটি হলো-এটি একটি ইলুউশন। ১৯৪৮ সালে মার্কিন বিমানবাহিনীতে এ নিয়ে তদন্ত প্রকল্প শুরু হলো। তার নাম হলো Project Blue Book. তখন থেকেই চালু হলো ইউএফও (বা ইউফো)। দিনে ও রাতে নানা সময়ে সেগুলো দেখা গেছে। অনেকে ছবি তুলেছে তাদের। সমস্ত ঘটনা বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞানীরা বললেন, ৯০% ইউফো হলো একদম জানা জিনিস। মানুষ ভুলভাবে সেগুলোর ব্যাখ্যা করেছে। যেমন অনেক উঁচু দিয়ে উড়ে যাওয়া জেট প্লেনের গায়ে ঠিকরেপড়া সূর্যের আলো কিংবা বাতাসে তাপমাত্রার জটিল পরিবর্তনে ঘটে যাওয়া কিছু কিছু বিষয়কে ইউফো বলে চিহ্নিত করা হয়।

তবে ১৯৬০ সালে কী নেমেছিলো নরম্যানের সামনে ? কী দেখেছিলেন ১৯৬৪ সালে সেই পুলিশ অফিসার ? কে বা কারা তৈরী করে ঈৎড়ঢ় ঈরৎপষব ? কেনই বা ‘অজঊঅ৫১’ এতো গোপনীয় ? মানুষ একদিন ঠিকই এর উত্তর বের করবে।

তথ্যঋণ : 
১. Crop Circle Research
Report. By – Nicole
Fitzgerald
২. UFOlogist Professor Dr.
Josef Allen Hynek
৩. ন্যশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেল
৪. হিস্ট্রী চ্যানেল
৫. ডিসকাভারী চ্যানেল
৬. ওয়েবসাইট
৭. সায়েন্স ওয়ার্ল্ড

লেখকঃ  মোহাম্মদ ওমর ফারুক


এ সম্পর্কিত আরো কিছু টুইট:

মানুষের সংখ্যা পদ্ধতি এবং কম্পিউটারের সংখ্যা পদ্ধতি
আর নয় প্রতারনা!! নিজেই চেক করুন Fake website
Online Recharge
বাংলা video tutorial সহ 8th Payment পাওয়ার পর এ পোস্ট টা লিখলাম ১০০% payment করে ,যদি পারেন কাজ করেন...
ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই হ্যাক!
internet থেকে আয় করার বাংলা ভিডিও টিউটোরিয়াল (outsourching DVD tutorial)
রানিং অবজেক্টকে ক্যাপচার করবে অ্যালকাটেল ওয়ানটাচ ফ্ল্যাশ ২

মন্তব্য দিনঃ

comments

About the author

অনুপম শুভ্র

অনুপম শুভ্র

Permanent link to this article: http://techtweets.com.bd/science-tech/0shuboo/31582

মন্তব্য করুন