«

»

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল দেখুন লেটেস্ট রিভিউ

বাজারে microsoft নিয়ে এলো মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল । যদিও উইন্ডোজ স্মার্টফোনের বাজার এখন ততটা গরম নেই, তবুও আমাদের মাঝে অনেকেই আছেন যাদের উইন্ডোজ ফোন খুবই প্রিয়। এটা খুবই স্বাভাবিক, একেক জনের পছন্দ একেক রকম হতেই পারে। তাছাড়া অনেকেই আছেন যারা অ্যান্ড্রয়েড থেকে উইন্ডোজে সুইচ করতে চান কিন্তু ভালো কোন মনের মতো উইন্ডোজ ডিভাইস পাচ্ছেন না তাদের জন্যেই মূলত আজকের এই রিভিউ। মিড রেঞ্জের মাইক্রোসফটের লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল ডিভাইসটিই আজকে আমাদের আলোচ্য বিষয়। চলুন, সেটটি সম্পর্কে সংক্ষেপে এর ভালো-মন্দ দিক গুলো জেনে নেয়া যাক।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল Preview

ডিভাইসটির ভালো দিক সমূহ:

  • শক্তিশালী ব্যাটারি।
  • চমৎকার ক্যামেরা।
  • স্লিক ওভার অল পারফর্মেন্স।

ডিভাইসটির মন্দ দিক সমূহ:

  • আকারে বেশ বড়।
  • স্পেক অনুযায়ী কিছুটা দাম বেশি।

ডিভাইসটির মূল ফিচার সমূহ:

  • ৫.৭ ইঞ্চি ৭২০পিক্সেল এইচডি আইপিএস এলসিডি স্ক্রিন।
  • ১৩ মেগাপিক্সেল মূল এবং ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ফেসিং ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা।
  • ১.২ গিগাহার্জ স্ন্যাপড্রাগন ৪০০ প্রসেসর।
  • ৩০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি।
  • এক্সট্রা মেমরি কার্ড স্লট।

আমরা ডিভাইসটির ভালো-মন্দ দিক গুলো এবং এর কী-ফিচারগুলো সংক্ষেপে দেখে নিলাম। এবার চলুন, বিস্তারিত রিভিউ শুরু করা যাক।

ডিজাইন

মাইক্রোসফটের লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল ডিভাইসটি আকারে বেশ বড় একটি স্মার্টফোন। এই ডিভাইসটির একটি অদ্ভুত মডেল রয়েছে যাতে আছে নিয়ন অরেঞ্জ কেস যা মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে সহজেই। যদিও এই ডিভাইসটির আরও অনেক কালার আছে অর্থাৎ আপনি চাইলে এই মডেলের অন্য রঙের ডিভাইসটিও নিতে পারবেন তবে এই নিয়ন অরেঞ্জের কম্বিনেশনটা খুবই অদ্ভুত এবং মাঝে মধ্যে কিছুটা বিব্রতকরও বটে! প্রথমেই এই রঙের মডেলটি নিয়ে কথা বললাম কেননা যদি আপনি কিছু না বুঝেই এই রঙের ডিভাইসটি কিনে আনেন তবে হয়তোবা পরবর্তীতে আপনারই পছন্দ নাও হতে পারে।

যাই হোক, প্রথমেই আমি লিখেছিলাম যে ডিভাইসটি আকারে বেশ বড় তাই এই ডিভাইসটি এক হাতে ব্যবহার করা কিছুটা কষ্টকরও বটে, মিডিয়াম সাইজের হাতের জন্য স্ক্রিনের অপর প্রান্তে বৃদ্ধাঙ্গুলি দিয়ে টাচ করা কিছুটা অসম্ভবও বলা চলে। ডিভাইসটির থিকনেস ৯ মিলি মিটার যা পূর্বের ৬৪০ (৬৪০ ডিভাইসটির পুরুত্ব ছিল ৮.৮ মিলি মিটার) ডিভাইসটি থেকে একে কিছুটা ভারী করেছে। এছাড়াও ডিভাইসটির প্রস্থ নেক্সাস ৬ এর মতই।

ডিভাইসটির বিল্ড কোয়ালিটি চমৎকার, প্লাস্টিক ডিজাইনের হবার পরেও ব্যাকে প্রেস করলে কোন রকম শব্দ শুনতে পাবেন না আপনি। বডির কোথাও কোন প্রকারের এক্সট্রা গ্যাপ নেই যাতে করে ধুলো ময়লা ভিতরে প্রবেশ করতে পারে। ভলিউম রকার এবং পাওয়ার বাটনগুলো সেট বড় আকারের হওয়া স্বত্তেও সহজেই এক্সেস করা যায়। স্মার্টফোনটির ডান পাশে রয়েছে ভলিউম রকার এবং পাওয়ার বাটন এবং উপরের বাম দিকে রয়েছে একটি ৩.৫ মিলি মিটারের হেডফোন জ্যাক। এছাড়াও ইউএসবি চার্জিং পোর্ট দেয়া হয়েছে স্মার্টফোনটির নিচের দিকে। এবং স্মার্টফোনটির পেছনে দেখতে পাবেন ক্যামেরা, এলইডি ফ্ল্যাশ, ছোট্ট একটি স্পিকার এবং মাইক্রোসফটের লোগো।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (9)

 

স্মার্টফোনটির ব্যাক কভারটিতে ব্যবহার করা হয়েছে উজ্জ্বল রঙ যা আমি আগেও বলেছি এবং এতে ব্যবহার করা হয়েছে চমৎকার মানের ম্যাট প্লাস্টিক যা মাইক্রোসফটের আরও একটি ডিভাইস লুমিয়া ৯৩০-এ ব্যবহার করা হয়েছিলো।
স্মার্টফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৩০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ারের রিমুভেবল ব্যাটারি যার কারণে আপনি একটি এক্সট্রা ব্যাটারি বহন করতে পারবেন বা আপনার ডিভাইসের ব্যাটারিটি নষ্ট হয়ে গেলে সহজে নিজেই পরিবর্তন করতে পারবেন। ডিভাইসটিতে নেই কোন ওয়্যারলেস চার্জিং সাপোর্ট।

ডিভাইসটিতে রয়েছে একটি মাইক্রো সিম স্লট এবং একটি মাইক্রো এসডি কার্ড স্লট যা আপনাকে অনবোর্ড ৮ গিগাবাইটের পাশাপাশি বাড়তি স্টোরেজ প্রদান করে সাহায্য করবে।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (8)

ডিসপ্লে

লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে একটি ফ্ল্যাট ৭২০ পিক্সেল এইচডি রেজ্যুলেশনের আইপিএস এলসিডি স্ক্রিন যার সুরক্ষার জন্য ডিসপ্লের উপরে যোগ করা হয়েছে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৩ প্রোটেকশন লেয়ার। তবে, এই দামে আপনি একটি ওয়ানপ্লাস ওয়ান ডিভাইস পেতে পারেন যা আপনাকে দেয় একটি ফুল এইচডি স্ক্রিন যার ফলে আপনি আরও শার্প রেজ্যুলেশন পাবেন। যাই হোক, এই দামের অন্যান্য স্মার্টফোনগুলোর সাথে তুলনা করলে ডিভাইসটির স্ক্রিনকে নরমাল বলতে হয় তবে অবশ্যই ৭২০পিক্সেলও খারাপ কিছুই নয়।

স্মার্টফোনটির ডিসপ্লের প্রতি ইঞ্চিতে রয়েছে ২৫৯টি করে পিক্সেল যা পূর্বের ৬৪০ থেকেও কিছুটা কম এবং এর ফলে আপনার কিছুটা ফাজি লাগবে ডিসপ্লে ইউনিটটি। তবুও, ডিভাইসটির স্ক্রিন মোটামুটি বেশ শার্প এবং অ্যাকুরেট কালার প্রদর্শন করে থাকে যার ফলে ওয়েব ব্রাউজিং বা মুভি দেখার জন্য এটি হতে পারে একটি চমৎকার ডিভাইস। ডিভাইসটির ডিসপ্লে ইউনিট যথেষ্ট ব্রাইট এবং এর ভিউয়িং অ্যাঙ্গেলগুলোও খুবই চমৎকার তাই প্রখর সূর্যের আলো এবং একেবারেই ঘুটঘুটে অন্ধকারেও বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে কোন সমস্যা ছাড়াই আপনি দেখতে পারবেন।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (1)

 

মাইক্রোসফট এই ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ‘ক্লিয়ার ব্ল্যাক’ স্ক্রিন টেকনোলজি যা কয়েক বছর আগে নকিয়া উদ্ভাবন করেছিলো তাদের লুমিয়া ডিভাইসগুলোর জন্য। তাই আপনি এই স্মার্টফোনটিতে বেশ চমৎকার ব্ল্যাক লেভেল এবং কনট্রাস্ট রেশিও উপভোগ করতে পারবেন। যদিও এই ব্ল্যাক লেভেল এবং কনট্রাস্ট রেশিও মূলত যুক্ত থাকে অ্যামোলেড স্ক্রিনের সাথে, যেমন রয়েছে স্যামসাং-এর নোট ৪ এর – তাই আপনি নোট ৪ এর মত পারফর্মেন্স না পেলেও এই দাম অনুযায়ী চমৎকার পারফর্মেন্স পাবেন।

ক্যামেরা

পূর্বের লুমিয়া ৬৪০ এর চাইতে এই ৬৪০ এক্সএল ডিভাইসটিতে ক্যামেরা ইউনিটটি কিছুটা আপডেট করা হয়েছে। এতে আপনি পাচ্ছেন কিছুটা বেশি মেগাপিক্সেল কাউন্ট এবং কার্ল জিস লেন্স যা আপনাকে ডিটেইলড ইমেজ ক্যাপচার করতে সাহায্য করবে। ডিভাইসটির রেয়ার ক্যামেরা ইউনিটে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল মেইন সেন্সর ক্যামেরা এবং একটি এলইডি ফ্ল্যাশ লাইট এবং সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ওয়াইড-অ্যাঙ্গেল ফ্রন্ট ফেসিং ক্যামেরা যা এখনকার সেলফি প্রেমীদের জন্য বেশ ভালো একটি অ্যাডিশন।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (1)

 

উজ্জ্বল আলোয় চমৎকার ছবি ধারণ করতে পারে ডিভাইসটির ক্যামেরা ইউনিট। যদিও ডিভাইসটিতে অপটিক্যাল ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন সুবিধা নেই তবুও লো-লাইট পারফর্মেন্সও বেশ ভালো এই ডিভাইসটির, সাথে এই ডিভাইসটি দিতে সক্ষম চমৎকার ডিটেইল।

লুমিয়া ক্যামেরা অ্যাপলিকেশনটি ব্যবহার করা অত্যন্ত সহজ, এছাড়াও ডিভাইসটতে রয়েছে ইমেজ রিলেটেড কিছু অ্যাডিশনাল অ্যাপলিকেশন যেমন লুমিয়া রিফোকাস, সেলফই অ্যাপ – যার ফলে ব্যবহারকারীরা আনন্দ পাবেন। এছাড়াও, আপনি ছবি তোলার ক্ষেত্রে কিছু ম্যানুয়াল সেটিংস-ও পাবেন যেমন আইএসও সেন্সিটিভিটি, ব্রাইটনেস, শাটার স্পিড এবং ইত্যাদি।

আউটডোরে ক্যামেরাটি বেশ ভালো ডিটেইলড ইমেজ ধারণ করতে সক্ষম। ছবি তোলার পরে কোন বাড়তি প্রসেসিং নেই যা আপনার শুটিং স্পিডকে ধীর করবে তাই আপনি বেশ দ্রুতই ছবি তুলতে পারবেন এই ডিভাইসটি দিয়ে। দিনের আলোতে আউটডোরে এই ডিভাইসটি দিয়ে তোলা কিছু ছবি দেখে নেয়া যাক।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (2)

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (3)

 

রাতের ছবিতে কিছুটা নয়েজ পাওয়া যায় তবে এটা এতটাও বেশি নয়। একটি রাতের ছবি দেখুন।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (4)

 

ডিভাইসটি আপনাকে প্রদান করে ফুল এইচডি ১০৮০ পিক্সেল ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধা। ভিডিও কোয়ালিটি বেশ চমৎকার। ভিডিওতে কালার অ্যাকুরেট আসে এবং নরমাল ক্যামেরার মত ভিডিওর সময় শেক হয়না ভিডিও ফুটেজে যা কম দামের অ্যান্ড্রয়েড ফোনগুলোতে লক্ষ্য করা যায়। এবং, এর সাথে যুক্ত থাকা মাইক্রোফোনও অডিওর ক্ষেত্রে বেশ ভালো ক্লারিটি প্রদান করে থাকে।

সফটওয়্যার

ডিভাইসটিতে দেয়া আছে উইন্ডোজ ফোন ৮.১ ডেনিম, তাই আপনি নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন কেননা ডিভাইসটিতে দেয়া আছে লেটেস্ট অপারেটিং সিস্টেম ভার্সন, শুধু তাই নয় পরবর্তীতে যখন উইন্ডোজ ১০ মোবাইল ভার্সনটি বের হবে তখন এই ডিভাইসটিতেও আপনি তা ব্যবহার করতে পারবেন।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (5)

 

স্মার্টফোনটির মোস্ট হাই-প্রোফাইল ফিচার হচ্ছে কর্টানা যা মাইক্রোসফটের একটি স্ট্র্যাটেজি যা কাজ করবে সিরি এবং গুগল নাও-এর বিপরীতে। যদিও, কর্টানা থেকে ভালো ফলাফল পেতে আপনাকে কিছুটা লম্বা প্রসেসের মধ্যে দিয়ে এতে হবে তবে একবার বিষয়টি আয়ত্ত করে ফেললে আমি নিশ্চিত আপনার ভালো লাগবে এই লেটেস্ট ফিচারটি।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (7)

পারফর্মেন্স

মিড রেঞ্জের এই ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে মিড রেঞ্জের প্রসেসর সেট-আপ। ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ১.২ গিগাহার্জ বিশিষ্ট স্ন্যাপড্রাগন ৪০০ প্রসেসর যা বর্তমানে বেশির ভাগ লো-এন্ড বা মিড রেঞ্জের অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস সমূহতে ব্যবহার করা হয় যেমন মটো জি ২। ডিভাইসটিতে দেয়া হয়েছে ১ গিগাবাইট র্যা০ম এবং এর গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিটে থাকছে অ্যাড্রিনো ৩০৫ জিপিইউ। প্রসেসরের পারফর্মেন্স খুব বেশি শক্তিশালী না হওয়ার পরেও এভারেজ অন্যান্য সেট-আপ এবং উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের কারণে আপনি ডিভাইসটি থেকে পাবেন ওভার অল ডিসেন্ট পারফর্মেন্স।

ব্যাটারি লাইফ

লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৩০০০ মিলি অ্যাম্পিয়ার রিমুভেবল ব্যাটারি। যেহেতু স্মার্টফোনটিতে রয়েছে একটি লোয়ার-রেজ্যুলেশন স্ক্রিন তাই খাতা কলমের হিসেব অনুযায়ী ডিভাইসটির ব্যাটার ব্যাক-আপ বেশি শক্তিশালী হবার কথা।

আপনি যদি একজন সাধারণ ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন তবে স্মার্টফোনটি এক চার্জে খুব সহজেই দুই দিন আপনাকে সার্ভিস দিতে সক্ষম হবে, তবে আপনি যদি একজন পাওয়ার ইউজার হন তবে ব্যাটারি-ব্যাক আপ একদিনে নেমে আসবে। কম কিন্তু নয়, কি বলেন?

স্মার্টফোনটি চার্জ হয় খুবই ধীর গতিতে। ৩০ মিনিটের চার্জে ডিভাইসটির ব্যাটারি ১০-১৫% চার্জ হয়ে থাকে।

মাইক্রোসফট লুমিয়া ৬৪০ এক্সএল (6)

কল কোয়ালিটি এবং স্পিকারস

ডিভাইসটির কল কোয়ালিটি বেশ ভালো। যদিও আজকাল স্মার্টফোন কেনার সময় এই ব্যাপারটি আর কেউ বেশি একটা ভেবে দেখেন না তবুও এই ডিভাইসটির কল কোয়ালিটি পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে এর স্পিকারে কথার ক্লারিটি ভালো এবং মাইক্রোফোনও বেশ ক্লিয়ার কথা প্রেরণ করে থাকে।

স্মার্টফোনটির স্পিকার মূলত স্মার্টফোনটির পেছনের ক্যামেরা সেন্সরের ঠিক ডান দিকে রাখা হয়েছে। স্পিকারটি মুভি এবং মিউজিকের ক্ষেত্রে বেশ ভালো আউটপুট দিয়ে থাকে এবং স্পিকার কলের ক্ষেত্রেও এর পারফর্মেন্স বেশ ভালো।

শেষ কথা

ডিভাইসটি বাংলাদেশে বিক্রি হচ্ছে ১৯২০০ টাকা মূল্যে। এখন সবচাইতে বড় প্রশ্ন হচ্ছে আপনার এই ডিভাইসটি কেনা উচিৎ কি না। দেখুন, আপনি যদি একজন উইন্ডোজ ফোন প্রেমি হয়ে থাকেন তবে এই বাজেটে উইন্ডোজের চমৎকার ফোন এটি। তবে আপনার প্রায়োরিটি যদি হয় যে কোন স্মার্টফোন তবে এই দামে অবশ্যই আপনি শক্তিশালী বেশ কিছু অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন পাবেন। বাকীটা আপনার উপরেই নির্ভর করছে। যাই হোক, আজকের এই রিভ্যিউটি এখানেই শেষ করছি। অন্য কোন ডিভাইসের রিভিউ নিয়ে খুব শীঘ্রই আপনাদের সামনে হাজির হবো, ততদিন ভালো থাকুন এবং অবশ্যই যুগ টেকের সাথে থাকুন।

পূর্বে এখানে প্রকাশিত facebook

 


মন্তব্য দিনঃ

comments

About the author

bashirxor

Permanent link to this article: http://techtweets.com.bd/mobiles/bashirxor/65046

মন্তব্য করুন